বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
৪২,৮৪৪
সুস্থ
৯,০১৫
মৃত্যু
৫৮২

বিশ্বে

আক্রান্ত
৬,০৪৫,৩২৮
সুস্থ
২,৬৭১,৪২৭
মৃত্যু
৩৬৭,১১১

দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর করোনা অবস্থা।

মৃত্যু সহ বিভিন্ন করোনা সংক্রান্ত সকল তথ্য সবসময় হালনাগাদ করছে ওয়ার্ল্ডোমিটারস ডট ইনফো। তাদের তথ্য মতে গতকাল অবধি বিশ্বজুড়ে করোনা সংক্রমিত রোগীর সংখ্যা ছিলো সাড়ে ৩৪ লাখের ও বেশি, মৃত্যুর সংখ্যা ২ লাখ ৪৩ হাজার প্রায় এবং সুস্থ হয়েছে ১১ লাখের ও বেশি মানুষ।

তারমধ্য এশিয়ায় করোনা রোগীর সংখ্যা প্রায় সাড়ে ৫ লাখ।এর মধ্যে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে প্রায় ৭০ হাজার, মৃত্যু ২ হাজার প্রায়।

পৃথিবীতে যখন করোনা মহামারীর ছড়াছড়ি তখন বাদ পরে নি এশিয়া মহাদেশ। এশিয়ার করোনা রোগীর সংখ্যা প্রায় ৫ লাখের ও বেশি, এর মধ্যে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে প্রায় ৭০ হাজার,মৃত্যু ২ হাজার ছুঁইছুঁই,

বিশ্বে করোনাভাইরাস শুরুতেই দক্ষিণ এশিয়ায় তার প্রভাব খুবই কম ছিলো তবে এখন এই অঞ্চল গুলোতে দিন দিন বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা এবং তার সাথে তাল মিলিয়ে কমে নেই মৃত্যুর সংখ্যা। দক্ষিণ এশিয়ার ভারত, পাকিস্তান, বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান সহ বেশকটি দেশে বেড়েই চলেছে করোনা’ র প্রভাব।

দক্ষিণ এশিয়ার এই দেশগুলো সঠিকভাবে মানছে না তাদের লকডাউন ব্যবস্থা। অন্যদিকে এই দেশ গুলোর পাশাপাশি দক্ষিণ এশিয়ার বাকি যে দেশগুলো রয়েছে শ্রীলংকা, মালদ্বীপ, ভূটান,নেপাল এই সকল দেশগুলোতে আক্রান্তের সংখ্যা আশংকাজনক ভাবে কম হলেও যে সকল দেশ গুলো বেশি পরিমানে আক্রান্ত তারা তাদের লকডাউন পদ্ধতি সঠিক ভাবে না মানাতে বাকি দেশগুলোর উপর বড় আকারে তার প্রভাব পড়তে পারে,তাই যেসকল দেশগুলো এখনো ভালো অবস্থায় আছে তারা তাদের দেশকে যতটুকু সম্ভব বাচিয়ে রাখতে জোরালোভাবে চেস্টা করে যাচ্ছে।

এখন পর্যন্ত দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি আক্রান্তের সংখ্যা ভারতে।
ভারতের গণমাধ্যম এনডিটিভি জানান, দেশটিতে গতকাল রাত ১২ টা পর্যন্ত শনাক্ত হয়েছেন ৩৭ হাজারেরও বেশি মানুষ এবং মারা গেছেন প্রায় ১ হাজার ২২৩ জন ও সুস্থ হয়েছে ১০ হাজারের ও বেশি মানুষ,
তার পাশাপাশি বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও অনেক ঝুকিপূর্ণ অবস্থায় অবস্থান করছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা শুরু থেকেই করোনা মোকাবেলায় সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করার বিষয়ে তাগিদ দিয়ে আসছে, লকডাউন সহ অন্যান্য পদক্ষেপ নিয়ে অনেক দেশ এরই মধ্যে সফলতার আভাস পেতে শুরু করছে।