বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
৪৪,৬০৮
সুস্থ
৯,৩৭৫
মৃত্যু
৬১০

বিশ্বে

আক্রান্ত
৬,০৪৭,৪১৭
সুস্থ
২,৬৭১,৮২৭
মৃত্যু
৩৬৭,১৪৯

সাধারণ ছুটির মেয়াদ আরও বাড়ানো হচ্ছে।

২ মে ২০২০
নিজিস্ব প্রতিবেধক : এ,এইচ,এম রাফছান উদ্দীন খোন্দকার

করোনা ভাইরাসের ভয়াবহতা থেকে দেশকে রক্ষার প্রক্রিয়া হিসেবে বিদ্যমান সাধারণ ছুটির মেয়াদ আরও বাড়াতে যাচ্ছে বাংলাদেশ সরকার। ২ মে রোজ শনিবার দেশের বিভিন্ন শীর্ষস্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে এ তথ্য জানিয়েছেন বাংলাদেশ সরকারের জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন এমপি। তবে কখন প্রজ্ঞাপন জারি হবে তা নিয়ে কোনো নির্দিষ্ট দিন বা তারিখ জানাননি জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন।

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী আরও জানান, ছুটি বাড়ানোর ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীকে প্রস্তাবটি দিয়েছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দ্রুত পদক্ষেপ নিবেন বলে প্রতিমন্ত্রী আশাবাদ ব্যক্ত করেন। প্রস্তাবটিতে প্রধানমন্ত্রী স্বাক্ষর করলেই এক দুইদিনের অর্থ্যাৎ আগামী ৪-৬ মে এর মধ্যে প্রজ্ঞাপন জারি হবার কথা রয়েছে।

সংবাদকর্মীরা কয়দিন ছুটি বাড়তে পারে তা প্রতিমন্ত্রীর কাছে জানতে চাইলে উত্তরে তিনি বলেন, বর্তমানে চলমান ছুটির মেয়াদ ৫ মে শেষ হবে।তারপর ৬ মে থেকে ১৬ মে পর্যন্ত ছুটি বাড়তে পারে বলে তিনি জানান।

এর আগে বাংলাদেশে কয়েকদফা সরকারি ছুটির মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে।করোনাভাইরাসের প্রকোপ কমানোর লক্ষ্যে প্রথম দফায় গত ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সরকারি ও বেসরকারি অফিসে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে বাংলাদেশ সরকার। এরপর দ্বিতীয় দফায় তা ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানো হয়।করোনাভাইরাসের প্রকোপ বাড়তে থাকলে তৃতীয় দফায় ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত এবং চতুর্থ দফায় ৫ মে পর্যন্ত ছুটি বর্ধিত করা হয়েছিল। সেই ছুটি আরেক দফা বাড়ছে বলে আভাস দিয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী।

৫ মে সরকারি ছুটি শেষ হলে আর তা সরকার বাড়াবেনা বলে গুঞ্জন উঠলেও আজকে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় জানিয়ে দিলো সরকারি ছুটি বাড়ছে। এতে জনমনে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে।এছাড়া বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দিচ্ছেন, ছুটি বাড়লেও জনগণ যেনো করোনাভাইরাসের প্রকোপ থেকে বাঁচতে ঘরে থাকেন।তারা বলছেন,করোনাভাইরাস থেকে বাঁচতে সেচ্ছা হোম কোয়ারান্টাইনে থাকা জরুরি।